পাসওয়ার্ড, টিকেটের বদলে শরীরে মাইক্রোচীপ নিয়ে ঘুরছে সুইডেনের নাগরিকেরা

মাইক্রোচীপ নিয়ে ঘুরছে সুইডেনের নাগরিকেরা 

  • > সুইডিশ নাগরিকেরা অফিস, কনসার্টে এমনকি সোশ্যাল মিডিয়াতে অ্যাক্সেস করার জন্য   মাইক্রোচিপ হাতের চামডার নিচে ডুকাচ্ছে ।
  • > কমপক্ষে ৪০০০ সুইডিশ নাগরিকের হাতের চামড়ার নিচে মাইক্রোচিপ ডুকানো রয়েছে। 
  • > এই মাইক্রোচিপের মাধ্যমে তারা তাদের বাড়ীতে  প্রবেশ করতে সিকিউরিটি কী হিসেবে ব্যাবহার করে। 
  • > কিছু কিছু ক্ষেতে অনেক ওয়েবসাইট এই চীপ এর মাধ্যম তাদের এক্সেস দেয়। 
  • > একেকটি মাইক্রোচিপ এর  খরচ প্রায় ১৮০ ডলার (১৪০০০ টাকা) । 
  • > একেকটি চিপ এর আকার চালের দানার মতো। 
  • > সুইডেনের বেশ কয়েকটি কোম্পানি বিনামূল্যে তাদের কর্মীদের এই চীপ  প্রদান করে। 



RFID Implant হচ্ছে নতুন ধরনের এক প্রযুক্তি যেটি অনেকটা ক্রেডিট কার্ড , সিমকার্ড এর প্রযুক্তির কাছাকাছি । যে টেকনোলজী এর মাধ্যমে তারবিহীন যোগাযোগ সম্ভব। ছোট ইমপ্লান্টগুলি  ক্রেডিট কার্ড বা মোবাইল পেমেন্টগুলির মতো এনএফসি প্রযুক্তি ব্যবহার করে।
মুলত হ্যাকিং থেকে নিজেদের নিরাপদ রাখতেই এই টেকনোলজী এর শুরু।

মাইক্রোচীপ এর মাধ্যমে ট্রেনের টিকেট চেকঃ 
২017 সালের জুন মাসে, সুইডেনের ট্রেন অপারেটর এস জে রেল ঘোষণা করেছিলেন যে প্রায় 100 জন যাত্রী তাদের ভ্রমণের জন্য মাইক্রোচিপ ব্যবহার করছেন।

 মাইক্রোচিপধারী যাত্রীরা সরাসরি তাদের টিকিট সরাসরি ডিভাইসে লোড করতে সক্ষম হয়।

ট্রেন কন্ডাকটর যাত্রী তাদের যাত্রার জন্য অর্থ প্রদান নিশ্চিত করার জন্য একটি স্মার্টফোন ব্যবহার করেই  চীপ পড়তে পারেন।

প্রতিষ্ঠানে কর্মীদের ট্র্যাক রাখতে অনেক বড় বড় কোম্পানী এই চীপ ব্যবহার করছে। 

এমনকি প্রফেশনাল সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম LinkedIn ও এই চীপ ব্যবহার করে একাউন্ট এক্সেস করতে দিচ্ছে।

BioEx Internation এই মাইক্রোচীপ তেরী তে নেতৃত্ব দিচ্ছে। 

তবে যেহেতু চিপটি ব্যক্তিগত তথ্য ধারন করে , তাই অনেকে ব্যক্তিগত তথ্যের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছেন।

* ডেইলী মেইল অবলম্বনে।  

Share this:

 
Copyright © Geek Bangladesh. Designed by OddThemes